• শিরোনাম

    জয় বাংলা মন্দিরে শেখ রাসেলের জন্মদিনে প্রার্থনা করল ভক্তবৃন্দ

    ফরিদপুর প্রতিনিধি | ১৯ অক্টোবর ২০১৮

    জয় বাংলা মন্দিরে শেখ রাসেলের জন্মদিনে প্রার্থনা করল ভক্তবৃন্দ

    ফরিদপুরে ছাত্রলীগের উদ্যোগে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত দুশো বছরের পুরনো “জয় বাংলা সার্বজনীন শীব মন্দিরে” শেখ রাসেলের জন্মদিন পালিত হল নানা আচার অনুষ্ঠান এবং ধর্মীয় রীতিনীতির মধ্য দিয়ে। খোজ নিয়ে জানা যায়,আশেপাশের ৭টি গ্রামের প্রায় দুই শতাধিক হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা যোগ দেয় এই অনুষ্ঠানে।একই দিন হরি বাসর অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শিব কে তার নতুন আবাসে অধিষ্ঠান করান মন্দিরের সভাপতি বাবু নীলকমল প্রামাণিক।

    হিন্দুদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজার কারনে সন্ধার পর আচার -অনুষ্ঠান শুরু করা হয়।গঙ্গাজল এবং ধুপ ধোয়ায় মন্দিরে পবিত্রতা আনয়নের কাজ সম্পূর্ন করেন দেবী ইতি কুমারি প্রামাণিক। এর পরেই ভক্তদের আনাগোনা শুরু হয় মন্দির প্রাংগনে।মূল আনুষঙ্গিকতা পালন করেন রাজবাড়ির শ্রী মধুসূদন দূর্গা মন্দিরের সভাপতি নরেন্দ্রনাথ বিশ্বাস”মূল আসন” সজ্জিত করনের মাধ্যমে।

    রাধা কৃষ্মের প্রতিকৃতি সাথে আসনে স্থান পায় মিষ্টান্ন, পুষ্পাঞ্জলি, ধুপকাঠি,আগরবাতি সহ অন্যান্য উপকরণ। এরপরেই শিবের প্রতিকৃতি নতুন মন্দিরে অধিষ্ঠান করান মন্দির সভাপতি নীলকমল প্রামানিক।ভক্তদের ক্রমাগত পুষ্পাঞ্জলি চলতে থাকে।এই আচার চলতে থাকে প্রায় ঘন্টা ব্যপি।যারা দুরদুরান্ত থেকে এসেছেন তাদের আগে সুযোগ দেয়া হয়। পুষ্পাঞ্জলির পর বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের জন্য বিশেষ প্রার্থনা করে মন্দিরে আগত সকল ভক্তবৃন্দ।

    এসময় তারা প্রথমে নমস্কার জানিয়ে পরে মাটিতে পরম শ্রদ্ধায় মাথা নুইয়ে ভক্তি করে বিদেহী আত্মার শান্তি এবং প্রধান মন্ত্রি শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করেন।ভক্তি পরিচালনা করেন মন্দিরের সাধারন সম্পাদক শ্রী রঞ্জিত রায়।তিনি বলেন “আমি আমার ছেলের কাছ থেকে প্রধানমন্ত্রীর আদরের ছোট ভাই শেখ রাসেলের জন্মদিন সম্পরকে জানতে পারি।পরেই আমি সভাপতির সাথে যোগাযোগ করি এরকম একটা প্রার্থনার।আমরা সবাই এতে খুশি।কারন এই মন্দির টা ধবংসের হাত থেকে নতুন জীবন দিয়েছে শেখ হাসিনার ছেলেরা।

    আমরা তো মন্দিরের নাম ও দিয়েছি জয় বাংলা মন্দির। মন্দিরের সভাপতি নীলকমল বলেন “আমাদের ইচ্ছে ছিল আরো বড় করে প্রার্থনার আয়োজন করার।কিন্তু বড়পূজা(দুর্গাপূজা) চলার কারনে কিছু ভক্ত আসতে পারেনি।তবে সামনে শেখ সাহেবকে নিয়ে একটা বড় উৎসব করার ইচ্ছে আছে আমার।” প্রার্থনা শেষে সবার মাঝে মিষ্টান্ন বিতরন করা হয়।সবশেষে ধর্মীয় সঙ্গীত (কীর্তন) পরিবেশনা করেন বিপুল কাহার ও তার দল।

    উল্লেখ্য,ফরিদপুরের প্রত্যন্ত অঞ্চলে প্রায় দুইশো বছর আগে মন্দির টি প্রতিষ্ঠার অদ্যাবধি কোন উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি।সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি অবগত হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সহসভাপতি শেখ স্বাধীন মোঃ শাহেদ। পরিবর্তীতে ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের উদ্যোগে মন্দির টি সম্পূর্ন নতুন করে পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা হয়।মন্দির কেন্দ্রিক ভক্তরা ছাত্রলীগের এ কাজে খুশি হয়ে নামকরণ করে “জয় বাংলা” সার্বজনীন শিব মন্দির।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    বে-রসিক ইউএনও!

    ১২ মার্চ ২০১৭

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে daynightbd.com