• শিরোনাম

    নির্বাচনি গুজব প্রতিরোধে প্রতি জেলায় পুলিশের মিডিয়া সেল

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ০২ ডিসেম্বর ২০১৮

    নির্বাচনি গুজব প্রতিরোধে প্রতি জেলায় পুলিশের মিডিয়া সেল

    আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গুজব ছড়ানোর আশঙ্কার রয়েছে। এ জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে প্রতি জেলায় গুজব মনিটরিং সেল গঠন করা হবে। যদি কেউ কোনো ধরণের গুজব ছড়ানোর চেষ্টা করে তাহলে তাৎক্ষনিকভাবে সেটি চিহ্নিত করে গণমাধ্যমে প্রচার করা হবে বলে জানিয়েছেন ডিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম ও সাইবার ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) প্রধান মনিরুল ইসলাম।

    গতকাল শনিবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিস্থ একটি রেস্টুরেন্টে মিডিয়া মিউজিয়াম অব বাংলাদেশ এর আয়োজনে অনুষ্ঠিত ‘জাতীয় নির্বাচন : গুজব সহিংসতা প্রতিরোধে সম্প্রচার মাধ্যমের ভ‚মিকা’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ তথ্য জানান।

    মিডিয়া মিউজিয়াম অব বাংলাদেশ এর প্রধান ও এসএটিভির অ্যাসাইনমেন্ট এডিটর এমএম বাদশার সঞ্চালনায় উক্ত গোল টেবিল আলোচনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সুশাসনের জন্য নাগরীকের (সুজন) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার, জিটিভি ও সারাবাংলা.নেট এর সিও ও বার্তা প্রধান সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা, চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের বার্তা প্রধান রাহুল রাহা, এসএটিভির সিএনআই ফেরদৌস মামুন, ইনডিপেন্ডেট টিভির সিএনআই আশীষ সৈকত প্রমুখ।

    সিটিটিসি প্রধান বলেন, সারাবিশ্বের মত বাংলাদেশেও গুজব একটি বড় সমস্যা। কারণ আমাদের দেশের মানুষের একটা মনস্তাত্বিক দিক হচ্ছে গুজব বা মিথ্যা তথ্য বিশ্বাস করা। যিনি যা ভাবছেন সেরকম কিছু পেলেই তা প্রকাশ করছেন সোস্যাল মিডিয়ায়। অন্যরাও সেটি বিশ্বাস করে লাইক, কমেন্ট, শেয়ার করছেন। ফলে কোনো কোনো সময় এটি কয়েকটি সমস্যা সৃষ্টি করছে। কিন্তু কেউ বোঝার চেষ্টা করে না প্রতিটি গুজবই একটি নির্দিষ্ট অসৎ উদ্দেশ্যে ছড়ানো হয়।

    মনিরুল ইসলাম বলেন, গুজব সাধরণত দুই ভাগে ভাগ করা যেতে পারে। ইনোসেন্ট গুজব। এতে করে সহিংসতার সম্ভাবনা নেই। আরেক ধরণের গুজব হচ্ছে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বা ইনটেনশনালি মিথ্যে তথ্য প্রচার করা। এটাই আমরা চ্যালেঞ্জ হিসেবে বিবেচনা করছি। কারণ বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক, টুইটার ও ইউটিউব এবং অনলাইন নিউজ পোর্টালের মাধ্যমে গুজব মুহুর্তের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ছে।

    আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও গুজব ছড়িয়ে অস্থিতিশীল ও সহিংস পরিবেশ তৈরি, ভোটারের মনোভাব পরিবর্তনের চেষ্টা ও ভোট প্রভাবিত করার আশঙ্কা রয়েছে। এ ধরনের কাজে দেশি ও বিদেশি কিছু ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান তৎপর রয়েছে। তাই নির্বাচনি গুজব প্রতিরোধের জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে প্রতি জেলায় মিডিয়া সেল গঠন করা হবে।

    গুজব ছড়ানোর চেষ্টা করা হলে মুহুর্তের মধ্যেই সেটি চিহ্নিত করে সংবাদ মাধ্যমে প্রচার করা হবে। একই সঙ্গে জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে আলাদা সেল কাজ করবে। তৃণমুল পর্যায়ে ক্ষুদ্র প্রশাসনেও গুজব প্রতিরোধে কাজ করা হবে। ফলে আমরা আশা করছি আশা করছি, এবারের নির্বাচন অংশগ্রহনমূলক, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু পরিবেশে অনুষ্ঠিত হবে।

    সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে ডিএমপির এ কর্মকর্তা বলেন, গুজব প্রতিরোধে গণমাধ্যম সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা রাখতে হবে। কোনো ধরণের গুজব ক্রস চেক না করে প্রকাশ না করলে গুজব তেমনভাবে ছড়াতে পারবে না। তাই সাংবাদিকদের আরো সতর্ক হওয়ার আহব্বান জানান তিনি।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে daynightbd.com