• শিরোনাম

    পালকিতে চড়ে আলোচনায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পুলিশ ও র‌্যাব প্রধান

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ২১ এপ্রিল ২০১৮

    পালকিতে চড়ে আলোচনায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পুলিশ ও র‌্যাব প্রধান

    তিনজনের পালকিতে চড়ার ছবি ফেইসবুকে পোস্ট করেছেন সাংবাদিক কুদ্দুস আফ্রাদ। তার ওই পোস্টেও অনেকে মন্তব্য করেছেন। শাহীন খন্দকার নামে একজন লিখেছেন, লিডার লক্ষণটা অতি উৎসাহী লাগছে? জাহিদ আহসান নামে একজন মন্তব্য করেছেন, চাবুক থাকলে আরও ভালো হত। আনোয়ারুল করিম রাজু নামে আরেকজন লিখেছেন, এটা করার কি প্রয়োজন ছিল, মাথায় ঢুকছে না।

    এই ঘটনার সমালোচনা করে এ কে এম রেজাউল করিম লিখেছেন, এটা বর্বরতা। মানুষ হয়ে কেন আরেকজন মানুষের কাঁধে উঠতে হবে? কুদ্দুস আফ্রাদও তার পোস্টে কমেন্ট করেছেন: এটা আমাদের সমাজ ও সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে বেমানান বটে। বিশেষ করে কারো কাঁধে চড়া। তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দোলায় চড়া নিয়ে দোষের কিছু দেখেন না সাংবাদিক নাদিরা কিরণ।

    তিনি লিখেছেন,একটু অহেতুক মনে হলেও নেতিবাচক বা দৃষ্টিকটূ ভাবার দরকার নেই মনে হয়। মাত্র ক্ষণিকের একটু কাঁধে তোলা। পালকির চলনও তো ছিল এদেশে। বিশেষ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এ আয়োজনে কোনো ভূমিকা নেই। তার হামবড়া ভাবও নেই। বরং র‌্যাব সদস্যরা অতিথিদের সম্মানে নিজ উদ্যোগেই করেছেন মনে করি।

    এটাকে স্বাভাবিক মনে করছেন আরেক ইমরান এইচ সুমন নামের আরেক ফেইসবুক ব্যবহারকারী। তিনি লিখেছেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইজিপি ও ডিজি র‌্যাবের চেয়ারে বসা নিয়ে যাদের অনেক আপত্তি, তাদের বলছি, আপনারা কখনো রিকশায় উইঠেন না। ভাড়া দেনতো কী হইছে?

    এ বিষয়ে র‌্যাবের মুখপাত্র মুফতি মাহমুদ খান বলেন,বর্ষবরণের আয়োজনে উৎসবমুখর পরিবেশ সৃষ্টির জন্য এখানে গ্রাম-বাংলার বিভিন্ন ঐতিহ্য আনা হয়েছিল। সাপ খেলা, বানর খেলা, পুতুল নাচ, ঢেঁকিতে ধান ভানা, মাটির তৈজসপত্র কীভাবে বানানো হয় তা উপস্থাপনসহ আমাদের গ্রামীণ সংস্কৃতির অনেক কিছুই এখানে ছিল। অনুষ্ঠানে আসা পালকিওয়ালাদের অনুরোধেই উনারা পালকিতে উঠেছিলেন। মাননীয় মন্ত্রী, আইজিপি ও র‌্যাব মহাপরিচালক তাদের খুশি করতেই পালকিতে উঠেছিলেন।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে daynightbd.com