• শিরোনাম

    ঢাকায় বিজিবি-বিএসএফ বৈঠক

    বাধ্য হয়ে সীমান্তে অস্ত্র ব্যবহার করতে হচ্ছে : বিএসএফ

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ২৬ এপ্রিল ২০১৮

    বাধ্য হয়ে সীমান্তে অস্ত্র ব্যবহার করতে হচ্ছে : বিএসএফ

    স্বেচ্ছায় নয়, আত্মরক্ষার্থেই বিএসএফ সদস্যরা সীমান্তে নন-লিথেল অস্ত্র ব্যবহার করতে বাধ্য হয় বলে জানিয়েছেন ভারতীয় সীমান্ত বাহিনীর মহাপরিচালক কে কে শর্মা। তিনি বলেন, নন-লিথেল অস্ত্র ব্যবহারের ফলে সীমান্তে প্রাণহানির ঘটনা কমে এসেছে। চলতি বছর এখন পর্যন্ত কোনো হত্যার ঘটনা ঘটেনি। তবে এ কৌশল অবলম্বনের কারণে অপরাধীদের দ্বারা বিএসএফ সদস্যদের ওপর আক্রমণের ঘটনা আশঙ্কাজনকভাবে বেড়েছে। আক্রমণের ঘটনা ঘটলেই বিএসএফ সদস্যরা শুধু নন-লিথেল ব্যবহার করছে।

    বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্সের (বিএসএফ) এর মহাপরিচালক পর্যায়ে ৪৬তম সীমান্ত সম্মেলন আজ বৃহস্পতিবার শেষ হয়েছে। গত ২৩ তারিখ থেকে ঢাকার পিলখানায় এ সম্মেলন শুরু হয়েছিল। সম্মেলনে বিএসএফ মহাপরিচালক কে কে শর্মার নেতৃত্বে ১০ সদস্যের ভারতীয় প্রতিনিধিদল অংশগ্রহণ করে। এছাড়া বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল সাফিনুল ইসলামের নেতৃত্বে ১৫ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল অংশ নেয়। সম্মেলনকে কেন্দ্র করে যৌথ আলোচনার দলিল (জেআরডি-জয়েন্ট রেকর্ড অব ডিসকাশন) গতকাল দুপুরে পিলখানায় স্বাক্ষরিত হয়। পরে সংবাদ সম্মেলনে বিজিবি ও বিএসএফ ডিজি সংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।

    সীমান্তে হত্যা শূন্যে নামিয়ে আনতে কী ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে? এমন প্রশ্নে বিএসএফের মহাপরিচালক কে কে শর্মা বলেন, সীমান্তে প্রাণনাশের ঘটনা দুই বাহিনীর কারো কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। বিএসএফ সীমান্ত হত্যা বন্ধে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করছে। মাদক-চোরাচালান বন্ধের ব্যাপারে তিনি বলেন, উভয়পক্ষে প্রাণঘাতির ঘটনা শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে গবাদি পশু ও মাদক চোরাচালানপ্রবণ এলাকায় যৌথ টহল পরিচালনা, সীমান্ত এলাকায় বসবাসকারী নাগরিকদের মধ্যে আন্তর্জাতিক সীমান্ত ব্যবস্থাপনা বিধি-নিষেধ সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি ও অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রম বন্ধে যৌথ পদক্ষেপ গ্রহণে বিএসএফ সম্মত।

    সীমান্ত দিয়ে ফেনসিডিল প্রবেশের বিষয়ে তিনি বলেন, ফেনসিডিল ভারতে নিষিদ্ধ, বৈধভাবে ফেনসিডিল উৎপাদন হয় না। এ বিষয়ে আমাদের নজরদারি এবং অভিযানে অব্যাহত রয়েছে। গত বছর প্রায় ৫ লাখ ৭০ হাজার বোতল ফেনসিডিলসহ বিপুল পরিমাণ অন্যান্য মাদক আটক করা হয়েছে। ফেনসিডিলসহ যে কোন মাদক বাংলাদেশে প্রবেশ ঠেকাতে আমরা সচেষ্ট রয়েছি। দেশে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের সময় ভারতের অংশে কিছু রোহিঙ্গা প্রবেশ করেছিল এবং বিএসএফ তাদেরকে বাংলাদেশে পুশব্যাক করে বলে শোনা গেছে।

    এমন প্রশ্নে বিজিবি ডিজি মেজর জেনারেল সাফিনুল ইসলাম বলেন, বহিরাগত নাগরিকদের অবৈধভাবে সীমান্ত পার হওয়ার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। রোহিঙ্গাদের কাজে লাগিয়ে কোনো স্বার্থান্বেষী মহল যেন কোনো কিছু করতে না পারে সে বিষয়ে আমরা সতর্ক। ফেলানী হত্যাকান্ডের বিচার সম্পর্কে তিনি বলেন, ফেলানী হত্যার বিষয়টি ভারতের আদালতে বিচারাধীন। যে কারণে আমরা এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে পারছি না।

    নির্বাচনকে সামনে রেখে সীমান্ত দিয়ে অবৈধ অস্ত্র অনুপ্রবেশের কোন সুযোগ নেই বলেও জানান তিনি। এক প্রশ্নে বিজিবি ও বিএসএফ ডিজি বলেন, বাংলাদেশ সংলগ্ন সীমান্তে ভারতের কাঁটাতারের বেড়ার ফলে উভয় দেশের সুবিধা হবে এবং অপরাধের মাত্র কমে আসবে। তাছাড়া এটা আন্তর্জাতিক সীমান্ত আইনে উল্লেখ রয়েছে কতটুকু পর্যন্ত বেড়া দেয়া যাবে।

    জানা যায়, এবারের সম্মেলনে আলোচ্য বিষয়ের মধ্যে সীমান্ত এলাকায় নিরস্ত্র বাংলাদেশি নাগরিকদের গুলি, হত্যা, আহত করা, বাংলাদেশি নাগরিকদের অপহরণ, আটক, অস্ত্র ও গোলাবারুদ পাচার, সীমান্তের অপর প্রান্ত থেকে বাংলাদেশে ফেনসিডিল, মদ, গাঁজা, হেরোইন এবং ইয়াবাসহ মাদক ও নেশাজাতীয় দ্রব্যের চোরাচালান বন্ধ, অবৈধভাবে আন্তর্জাতিক সীমান্ত অতিক্রম, আন্তর্জাতিক সীমান্তের ১৫০ গজের মধ্যে উন্নয়নমূলক নির্মাণ কাজ,

    আখাউড়া আইসিপির ভারতীয় অংশে ইটিপি (এফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্লান্ট) স্থাপন, উভয় দেশের সীমান্তে নদীর তীর সংরক্ষণ কাজে সহায়তা, চোরাচালানী ও অপরাধীদের বিষয়ে তথ্য বিনিময় এবং উভয় বাহিনীর মধ্যে পারস্পরিক আস্থা বৃদ্ধির উপায় আলোচনায় গুরুত্ব পায়। এদিকে আগামীকাল শুক্রবার বিকালে পঞ্চগড়ের বাংলাবান্দা আইসিপিতে বিজিবি প্রধান ও বিএসএফ মহাপরিচালক যৌথভাবে জয়েন্ট রিট্রিট সেরিমনি উদ্বোধন করবেন এবং একই দিনে বাংলাদেশ ত্যাগ করবে বিএসএফের ১০ সদস্যের প্রতিনিধিদল।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে daynightbd.com