• শিরোনাম

    বিপণিবিতানগুলোতে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ০৯ জুন ২০১৮

    বিপণিবিতানগুলোতে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়

    শুক্রবার সকাল থেকেই পছন্দের জিনিসটি কিনতে ক্রেতারা ভিড় জমাতে থাকেন অভিজাত বিপণিবিতান বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্স, যমুনা ফিউচার পার্ক, ইস্টার্ন প্লাজা, ধানমণ্ডির মেট্রো শপিং মল, প্লাজা এআর, সানরাইজ প্লাজা, অরচার্ড পয়েন্ট, নিউমার্কেট ও গাউসিয়ার আশেপাশের বিপণিবিতানগুলোতে। বিপণিবিতান আর শপিং মলের পাশাপাশি ফুটপাতেও ছিল উপচে পড়া ভিড়। সব ধরণের জিনিসপত্রের সহজলভ্যতার জন্য নিউমার্কেট ও গাউসিয়ায় ভিড় ছিল সবচাইতে বেশি। এর আশপাশের ফুটপাতগুলোতে ছিল চোখে পড়ার মত ভিড়।

    এখানকার ক্রেতারা বেশি কিনছেন পাঞ্জাবী, শার্ট, প্যান্ট, ওয়ান পিস কামিজ, গাউন, কুর্তি, জুতা ও স্বর্ণালঙ্কার। এছাড়াও ওড়না আর হিজাবের দোকানগুলোতেও ছিল ভিড়। ক্রেতাদের বাড়তি চাপ সামলাতে হিমশিমও খেতে হচ্ছে বিক্রেতাদের। গাউসিয়া মার্কেটের সামিন লেডিস ফ্যাশনের বিক্রয়কর্মী রুবেল বলেন, আজকে এতো ভিড়, পা ফেলারও জায়গা নাই দোকানে। অনেক বিক্রি হচ্ছে। আর তো সময় নাই, অনেকেই দুই তিনদিন পর বাড়ি চলে যাবে। তাই আজকেই কিনে নিচ্ছে।

    চাঁদনি চকের একটি দোকানে ওড়না কিনছিলেন নাখালপাড়ার বাসিন্দা জেরিন। তিনি বললেন, ওড়নাটা সেদিন দাম করে গেছি, অথচ আজকে ২০ টাকা বেশি চাচ্ছে। আর এতো ভিড় কথাও শুনছে না। বলে, নিলে নেন না নিলে যান। অনেকে আবার জামা কিনে স্বর্ণালঙ্কার আর জুতার দোকানে ভিড় জমাচ্ছিলেন। গাউসিয়ার বাইরে জুতার দোকান রয়েছে ইয়াসিন আলীর। দুপুর থেকে ভিড় ও বিক্রি অনেক বেশি হচ্ছে বলে জানান তিনি। কাস্টমারদের তো আর কেনার সময় নাই। অনেকে বাড়িত চইলা যাইব। আবার আইজকা শুক্রবার, আইজকাই বেশি বিক্রি হইতাছে। চাঁন রাইতে তো আর সবাই ঢাকা থাকব না। তাই আইজকা বেশি ভিড়।

    এলিফ্যান্ট রোডে পাঞ্জাবি কিনতে আসা একরাম বলেন, কয়েকটা পাঞ্জাবী কিনেছি। এখানে অনেক পাঞ্জাবি এক সাথে আর একটু সস্তায় পাওয়া যায়। এতোদিন জ্যাম আর বৃষ্টির কারণে আসিনি। আজকেও জ্যাম ছিল। কিন্তু বৃষ্টিটা না থাকায় কেনাকাটা করা গেছে। পান্থপথের বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্সে ফ্যাশন হাউজ ও দোকানগুলোতে ছিল উপচে পড়া ভিড়। ফ্যাশন ব্র্যান্ড ইয়োলোর সিনিয়র এক্সিকিউটিভ তানভীর আলম চৌধুরী বলেন, “আজকে অনেক ভিড়; কথা বলারও সময় নাই। অনেক কাস্টমার আসছে।

    এই বিপণিবিতানে কেনাকাটা করতে তাঁতীবাজার থেকে এসেছেন নাসরিন মুন্নি। ভীড়ের কারণে স্বস্তিতে কেনাকাটা করতে পারছেন না বলে জানালেন তিনি। আগে শপিং করব করব করে আর করা হয় নাই। আর এখন মার্কেটে এতো ভিড় যে ঠিকমতো ড্রেস দেখতেও পারছি না। কিনতে তো হবেই, সময়ও তো নাই। বাড়তি ক্রেতা পাওয়ায় বিক্রেতারা দাম ছাড়ছেন না বলে মনে করছেন অনেক ক্রেতা। ধানমণ্ডির মেট্রো শপিং মলে ছেলেমেয়ের জন্য ঈদের কেনাকাটা করছিলেন বেসরকারি চাকুরীজীবী জয়নাল আহমেদ।

    তিনি বলেন, অনেক কাস্টমার আজকে। এজন্য তেমন গুরুত্ব দিয়ে জিনিস দেখাচ্ছে না। আবার পছন্দ হলে দামও কমাচ্ছে না।বুধবার বাড়িতে চলে যাব। তার আগে তো আর ছুটি নাই। তাই আজই কিনতে হবে। এদিকে প্রগতি সরণির শপিং কমপ্লেক্স যমুনা ফিউচার পার্কেও অন্যান্য দিনের তুলনায় ভিড় ছিল ভনেক বেশি। এই বিপণিবিতানের ইয়ডো ডিজাইনার সোর্সের ব্যবস্থাপক ফারহানা জামান জানান, আজ তাদের ক্রেতার পাশাপাশি বিক্রিও হচ্ছে বেশি। মিরপুরের বিভিন্ন বিপণিবিতান ও শপিং কমপ্লেক্সেও বিকিকিনিতে ব্যস্ত ছিলেন ক্রেতা ও বিক্রেতারা।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    নকিয়া ৩৩১০ ফোনের আবির্ভাব

    ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে daynightbd.com