• শিরোনাম

    ভালুকায় বিস্ফোরণে চলে গেলেন শাহীন মিয়া

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ২৯ মার্চ ২০১৮

    ভালুকায় বিস্ফোরণে চলে গেলেন শাহীন মিয়া

    ময়মনসিংহের ভালুকায় বিস্ফোরণে দগ্ধ শাহীন মিয়া (২৪) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। বুধবার দিবাগত রাত পৌনে ১২টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) বাচ্চু মিয়া এ তথ্য জানান।শাহীনের বাবার নাম নুরুজ্জামান আকন্দ। বাড়ি সিরাজগঞ্জের শাহবাজপুর উপজেলার সাতবাড়ি গ্রামে। দুই ভাই ও দুই বোনের মধ্যে শাহীন সবার ছোট ছিলেন বলে পরিবার সূত্রে জানা গেছে।

    তুষার মাহমুদ নামে শাহীনের এক বন্ধু জানান,আজ বৃহস্পতিবার সকালে শাহীনের লাশ গ্রামের বাড়ি নিয়ে যাওয়া হবে।বার্ন ইউনিটের আবাসিক চিকিৎসক পার্থ শংকর পাল জানিয়েছেন, শাহীনের শরীরের ৮৩ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল। ভালুকায় বিস্ফোরণে দগ্ধ অন্য দুজন হলেন হাফিজুর রহমান (২৩) ও দীপ্ত সরকার। হাফিজুরের শরীরের ৫৪ শতাংশ এবং দীপ্তের ৫৮ শতাংশ পুড়ে গেছে।

    গত শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে ভালুকার হবিরবাড়ি ইউনিয়নের মাস্টারবাড়ি এলাকার একটি ছয়তলা ভবনে বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণে খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তাওহীদুল ইসলাম (২৩) ঘটনাস্থলেই নিহত হন। গুরুতর দ্বগ্ধ হন একই বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্য তিন শিক্ষার্থী। গত রবিবার ভোরে তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। নিহত তাওহীদুলের বাড়ি বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার শাজাহানপুর গ্রামে।

    হতাহত ব্যক্তিরা প্রত্যেকেই ভালুকা উপজেলার মাস্টারবাড়ি এলাকায় অবস্থিত স্কয়ার ফ্যাশন লিমিটেড নামের একটি পোশাক কারখানায় ইন্টার্নি কোর্স করছিলেন।বিস্ফোরণ ঘটা ওই বাড়ির নাম আরএস টাওয়ার। আনুমানিক তিন মাস আগে বাড়িটির নির্মাণকাজ শেষ করা হয়। এ মাসেই ওই বাড়ির তৃতীয় তলার একটি ইউনিট ভাড়া নেন ওই চার শিক্ষার্থী।ওই বাড়ির একটি ইউনিটের বাসিন্দা, প্রতিবেশী, পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শক্তিশালী বিস্ফোরণে তৃতীয় তলার এক পাশের দেয়াল ধসে পড়ে। দেয়াল ধসে পড়ার সময় দগ্ধ তিন শিক্ষার্থী পাশের একটি টিনশেড বাড়ির চালে ছিটকে পড়েন। পরে আশপাশের বাসিন্দারা ওই তিনজনকে উদ্ধার করে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও ভালুকা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বিস্ফোরণ হওয়া ইউনিটের একটি ঘর থেকে তাওহীদুলের লাশ উদ্ধার করে।

    তিতাস গ্যাস কোম্পানির ভালুকা কার্যালয়ের উপব্যবস্থাপক আতিকুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ওই বাড়িটি অবৈধ গ্যাস-সংযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি তদন্ত করা হবে।স্কয়ার ফ্যাশন লিমিটেডে গিয়ে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের মাধ্যমে ওই চারজন ১১ মার্চ থেকে ইন্টার্নি শুরু করেন। স্কয়ার ফ্যাশনের সহকারী ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম বলেন, আগামী ৫ এপ্রিল  তাদের ইন্টার্নি শেষ হওয়ার কথা ছিল।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে daynightbd.com