• শিরোনাম

    রাজধানীতে রিকশা চলাচলের দাবিতে সড়কে অবরোধ

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ০৯ জুলাই ২০১৯

    রাজধানীতে রিকশা চলাচলের দাবিতে সড়কে অবরোধ

    রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ তিনটি সড়কে রিকশা চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার দাবিতে সড়ক অবরোধ করেছে রিকশাচালকরা। গতকাল সকাল সাড়ে ৮টা থেকে মুগদা, মানিকনগর, মান্ডা, বালুরমাঠ ও কমলাপুর টিটিপাড়ায় সড়কে অবস্থান নিয়ে তারা বিক্ষোভ করে। মুগদা থানার ওসি প্রলয় কুমার সাহা বলেন,প্রায় তিন হাজার রিকশাচালক রাস্তায় অবস্থান করে। মুগদা বিশ্বরোড থেকে মানিকনগর বিশ্বরোড পর্যন্ত রাস্তা জুড়ে অবস্থান নেওয়ায় ওইসব সড়কে যানচলাচল বন্ধ থাকে।

    এদিকে,রাজধানীর প্রধান তিন সড়কে রিকশা চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত মানতে নারাজ রিকশার চালকরা। তাদের দাবি প্রয়োজনে আলাদা লেন বানিয়ে রিকশা চলাচলের সুযোগ দিতে হবে। তা না হলে দাবি আদায়ে আজ মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে ৭২ ঘণ্টা টানা সড়ক অবরোধ কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছেন রিকশা মালিক ঐক্য পরিষদের আহব্বায়ক মমতাজ উদ্দিন। এর আগে সায়েদাবাদ-উত্তরা মহাসড়কের মানিকনগর-শাহজাহানপুর অংশে অবরোধ করেন রিকশা চালকরা। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তারা একদিনের আল্টিমেটাম দিয়ে মতো কর্মসূচি স্থগিত করেন। দাবি মানা না হলে মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে ঢাকার সড়কগুলো আবারও অবরোধ কর্মসূচি শুরু হবে।

    রিকশা মালিক ঐক্য পরিষদের আহব্বায়ক মমতাজ উদ্দিন বলেন, সড়কে অন্য যানবাহন চলার পাশাপাশি রিকশা চলাচলের সুযোগ দিতে হবে। রাস্তা বন্ধ থাক বাধা দেব না, কিন্তু রিকশার জন্য আলাদা লেন করতে হবে। আলাদা লেন না করে রিকশা চলাচল বন্ধ করা যাবে না। আন্দোলনকারী এই নেতা আরও বলেন,রিকশা বন্ধে মেয়রের সিদ্ধান্ত অযৌক্তিক। এটি আমরা মানব না। প্রাইভেট গাড়িকে অধিক সুবিধা দিতেই এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আর আমাদের পেটে লাথি মারা হয়েছে। এ সিদ্ধান্ত মানলে আমাদের বউ বাচ্চা নিয়ে না খেয়ে মরতে হবে। আমাদের দাবি রিকশা চলবে। এই দাবি না মানা পর্যন্ত সড়ক ছেড়ে দেওয়া হবে না। এছাড়া ১১ জুলাই বিকেল ৩টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে স্মারকলিপি দেওয়া হবে।

    আন্দোলনকারী আবুল কাশেম বলেন, রিকশা বন্ধ হলে সবাই বিপাকে পড়বে। স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে অসুবিধায় পড়বেন। অফিসগামী লোকজন বিপদে পড়বেন। গুরুত্বপূর্ণ এ সড়ক দিয়ে উত্তরা, গাজীপুর থেকে আসা যানবাহনগুলো সায়েদাবাদ হয়ে চিটাগাং রোড পর্যন্ত চলাচল করে। শুধু তাই নয় উত্তরবঙ্গ থেকে আসা চট্টগ্রাম,কুমিল্লা, নোয়াখালী ও কক্সবাজারগামী পরিবহনগুলোও এ সড়ক দিয়ে চলাচল করে। রিকশা শ্রমিকদের আকস্মিক এ আন্দোলনের ফলে মানিকনগর-শাহজাহানপুর সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকে। এর ফলে আশেপাশের সড়কগুলোতে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। গাড়ি থেকে নেমে হেঁটে চলাচল করেন বিভিন্ন গন্তব্যগামী লোকজন।

    গত ৩ জুলাই ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) নগর ভবনে ঢাকা ট্রান্সপোর্ট কন্ট্রোল অথরিটির (ডিটিসিএ) এক বৈঠকে রাজধানীর দুটি রুটে রিকশা চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। গত রবিবার থেকে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়। প্রাথমিকভাবে গাবতলী থেকে আসাদগেট হয়ে আজিমপুর ও সায়েন্স ল্যাব থেকে শাহবাগ পর্যন্ত রিকশা চলাচল করবে না। এছাড়া কুড়িল বিশ্ব রোড থেকে রামপুরা হয়ে খিলগাঁও-সায়েদাবাদ পর্যন্ত রিকশাসহ অন্যান্য অবৈধ ও অননুমোদিত যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে daynightbd.com