• শিরোনাম

    বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা, ভোগান্তিতে নগরবাসী

    ডেনাইট ডেস্ক | ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

    বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা, ভোগান্তিতে নগরবাসী

    বৃষ্টিতে রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় তীব্র জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। পাশাপাশি বিভিন্ন সংস্থার অপরিকল্পিত খোঁড়াখুঁড়ি আরও বাড়িয়ে দিয়েছে নগরিক-দুর্ভোগ । রবিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরের পর থেকে রাজধানীতে কখনও গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি, কখনও কখনও ভারী বৃষ্টিপাতের পর নগরীর কোনও কোনও সড়কে হাঁটুপানি জমেছে।

    সরেজমিনে দেখা গেছে, দুপুরে নগরীর মীরপুর, কাজীপাড়া, শেওডাপাড়া, সেনপাড়া, মিরপুর ১৩ নম্বর সেকশন, মিরপুর ৬ নম্বরের একাংশ, ১০ নম্বর গোলচত্বরের সড়ক, মোহাম্মদপুরের বিভিন্ন এলাকা, তেজকুনিপাড়া, তেজতুরী বাজার, রাজধানীর গ্রিন রোড, বনশ্রী, নয়াপল্টন, কাকরাইল, শান্তিনগর, মৌচাক, মগবাজারের ভেতরের দিকে গলি; রাজারবাগ, কমলাপুর, আরামবাগ, বঙ্গবাজার এলাকা,সিদ্দিক বাজার মোড, নাজিরা বাজার, নাজিম উদ্দিন রোড, পুরনো ঢাকার হাজী ওসমান গণি রোডসহ বিভিন্ন স্থানে তীব্র জলাবদ্ধতা দেখা যায়। এসব সড়কে যানজটের চিত্র ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করেও একটু সামনে যাওয়া যায়নি। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন যাত্রীদের পাশাপাশি চালকরাও।

    শেওড়াপাড়া এলাকার বাসিন্দা কামাল হোসেন বলেন, ‘রাস্তায় কোমর পর্যন্ত পানি জমে গেছে। বৃষ্টি হলেই এই এলাকার শতশত মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হয়। দীর্ঘদিন ধরে এই সমস্যা দেখা দিলেও সিটি করপোরেশন কোনও ব্যবস্থা নেয়নি। দিশারী পরিবহনের চালক আফসার উদ্দিন বলেন,‘ আগারগাঁও থেকে মীরপুর ১২ নম্বর পর্যন্ত সড়কটি যেন মরণ ফাঁদ। ২০ মিনিটের রাস্তায় দুই ঘণ্টাও যাওয়া যায় না। আজকের বৃষ্টিতে সড়কটি পার হতে কমপক্ষে এক ঘণ্টা সময় লেগেছে।’

    একই অবস্থা দেখা গেছে রাজারবাগ এলাকায়। এই এলাকায় ড্রেন নির্মাণ কাজ চলমান থাকলেও এখনও তা শেষ হয়নি।বঙ্গবাজার মোডে গিয়ে দেখা গেছে বঙ্গবাজার থেকে শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিট পর্যন্ত সড়কে কোমর পানি জমে গেছে। এই সড়কটিতে কয়েকটি লেগুনা বিকল হয়ে পড়ে থাকতে দেখা গেছে। নাজিরা বাজার এলাকার বাসিন্দা রফিকুজ্জামান বলেন, ‘বৃষ্টিরপানি কারণে বাসা থেকে পল্টনে আসতে অনেক সময় লেগেছে। আসপাশের অনেক এলাকায় পানি জমে গেছে।’

    জানতে চাইলে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘জলাবদ্ধতা নিরসনে আমরা বেশ কয়েকটি প্রকল্প হাতে নিয়েছি। এগুলো বাস্তবায়ন করা হলে জলাবদ্ধতা কমে আসবে। এরই মধ্যে কালশী এলাকার জলাবদ্ধতা অনেক কমে এসেছে।

    এদিকে, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ক উপদেষ্টা খন্দকার মিল্লাতুল ইসলাম বলেন, ‘দুপুরের পর থেকে টানা বৃষ্টিতে অনেক এলাকায় জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। তবে আগের মতো এখন সে পরিমাণ জলাবদ্ধতা নেই। উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়নের কারণে জলাবদ্ধতা কমে এসেছে। বৃষ্টি শুরু হওয়ার পর থেকে আমাদের সব পরিচ্ছন্নতাকর্মী ও পরিচ্ছন্নতা পরিদর্শকসহ সবাইকে পানি-নিষ্কাশনে মাঠে নামতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তারা দ্রুত পানি নেমে যাওয়া জন্য ড্রেন ও ম্যানহোলগুলো খুলে দিয়েছেন।’ এরই মধ্যে অনেক এলাকার পানি নেমে গেছে বলেও তিনি দাবি করেন।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে daynightbd.com