• শিরোনাম

    দুই দিনেও সন্ধ্যান মেলেনি সাবেক রাষ্ট্রদূতের

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ০৬ ডিসেম্বর ২০১৭

    দুই দিনেও সন্ধ্যান মেলেনি সাবেক রাষ্ট্রদূতের

    দুই দিনেও সন্ধ্যান মেলেনি রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকা থেকে নিখোঁজ হওয়া সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামানের (৬১)। কি কারণে তিনি নিখোঁজ রয়েছেন সে বিষয়ে এখনো অন্ধকারে পরিবার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তবে, ঘটনা তদন্তে থানা পুলিশের পাশাপাশি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশও (ডিবি) কাজ শুরু করেছে। এদিকে, মারুফ জামান নিখোঁজ হওয়ার পরই তার বাসায় গিয়ে তিনজন সুঠামদেহী ব্যক্তি তার কম্পিউটার ও ল্যাপটপ নিয়ে যায়। এসময় তারা বাসার ভেতরে তল্লাশিও চালায় বলে আজ বুধবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে নিখোঁজের পরিবার। তবে, ওই ব্যক্তিদের মাল্টি ক্যাপ পড়া থাকায় সিসি ক্যামেরা ফুটেজে চেহারা বুঝা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে পুলিশ।

    বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সোমবার সন্ধ্যায় ছোট মেয়ে সামিহা জামানকে বিমানবন্দর থেকে নিয়ে আসতে মারুফ জামান ধানমন্ডির বাসা থেকে গাড়ি চালিয়ে বের হন। তার কিছুক্ষণ পর ৭টা ৪৫ মিনিট নাগাদ বাসার ল্যান্ড ফোনে অজ্ঞাত নম্বর থেকে ফোন করে গৃহপরিচারিকাকে বলেন, তার বাসায় কম্পিউটার নিতে কেউ একজন আসবেন। এর কিছুক্ষণ পর তিনজন সুঠামদেহী ভদ্রলোক বাসায় এসে তার ল্যাপটপ, বাসার কম্পিউটারের সিপিইউ, ক্যামেরা, একটি স্মার্টফোন নিয়ে যায় ও তার ঘরে তল্লাশি চালায়। সেসময় তার ফোন বন্ধ থাকায় তার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

    এতে আরো বলা হয়, মঙ্গলবার দুপুরে ধানমন্ডি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয় (জিডি নং ২১৩)। সন্ধ্যায় তার গাড়িটি (ঢাকা মেট্রো-গ-২১-১৩৯৯) পুলিশ খিলক্ষেত থেকে উদ্ধার করে। তবে মারুফ জামানের সঙ্গে কোনও ধরনের যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। পরিবারের সদস্যরা তার ভবিষ্যৎ নিয়ে অত্যন্ত চিন্তিত ও উদ্বিগ্ন। এসময় মারুফ জামানকে যত দ্রুত সম্ভব উদ্ধার করা দাবি জানানো হয়।

    গাড়ি উদ্ধারকারী খিলক্ষেত থানার এসআই জাহেদ বলেন, মঙ্গলবার সকাল থেকেই গাড়িটি অক্ষত অবস্থায় রাস্তার পাশে পার্কিং করা ছিল। কোনও দুর্ঘটনা বা অন্য কিছু হয়নি। লকড অবস্থায় ছিল। লোকজনের উপস্থিতিতে গাড়িটি খুলে ভেতরে শুধু গাড়ির কাগজপত্র পাওয়া গেছে। পরে সেসব জব্দ তালিকা করে খিলক্ষেত থানায় নেয়া হয়েছে।

    জিডির তদন্তকারী কর্মকর্তা ধানমন্ডি থানার এসআই তরিকুল ইসলাম বলেন, ওই বাসার সিসি ক্যামেরা ফুটেজে তিন ব্যক্তিকে দেখা গেছে। তবে, মাল্টি ক্যাপ পড়া থাকায় চেহারা বোঝা যাচ্ছে না। তবে, যারাই জড়িত থাকুক আমরা তাদের খুজে বেড় করা হবে। নিখোঁজ মারুফের সন্ধ্যান পেতে সর্বাত্মক চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি। ডিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) প্রধান মনিরুল ইসলাম জানান, আমরা ঘটনাটি শুনেছি। থানায় জিডি হয়েছে। আমরা সে অনুযায়ী কাজ করছি।

    উল্লেখ্য, মারুফ জামান রাষ্ট্রদূত হিসেবে ৬ ডিসেম্বর ২০০৮ থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর ২০০৯ পর্যন্ত ভিয়েতনামে কর্মরত ছিলেন। এর আগে তিনি কাতারে রাষ্ট্রদূত, যুক্তরাজ্যে কাউন্সেলর, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাবেক অতিরিক্ত সচিব ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সিগন্যাল কোরের (ষষ্ঠ শর্ট কোর্স) ক্যাপ্টেন হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০১৩ সালে তিনি অবসর নেন।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে daynightbd.com