• শিরোনাম

    জরুরী সেবা পেতে ৯৯৯ উদ্বোধন

    বিমানের যাত্রীদের ইমিগ্রেশনের লাইনে দাঁড়াতে হবে না

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ১২ ডিসেম্বর ২০১৭

    বিমানের যাত্রীদের ইমিগ্রেশনের লাইনে দাঁড়াতে হবে না

    ‘৯৯৯’ নম্বরে কল করলেই খুব সহজে অগ্নিকান্ড নির্বাপন, পুলিশি ও এ্যাম্বুলেন্স সহায়তা মিলবে। এতে কোন টোল কিংবা টাকা খরচ হবে না। আজ মঙ্গলবার দুপুরে মহানগর পুলিশের ক্রাইম কমান্ড অ্যান্ড কন্ট্রোল সেন্টারে জাতীয় জরুরি সেবা-৯৯৯ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। ফলক উন্মোচনের পর এর কল সেন্টারও ঘুরে দেখেন তিনি। পরে এই বিষয়ে ওসমাসী স্মৃতি মিলনায়তনে এক আলোচন সভা অনুষ্ঠিত হয়।

    প্রধান অতিথির বক্তব্যে সভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ৯৯৯ ডিজিটাল বাংলাদেশের উদাহরণস্বরূপ। বিশ্বের সাথে পাল্লা দিয়ে বাংলাদেশও ডিজিটালে পর্দাপণ করছে। ঢাকা সিটিকে ‘সেভ সিটিতে’ পরিণত করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ঢাকার পর পর্যায়ক্রমে অন্যান্য শহরও সেফ সিটি বাস্তবায়নে করা হবে। এই লক্ষ্যে কাজ করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী একের পর এক উন্নয়ন হচ্ছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, দেশ ‘ডিজিটাল বাংলাদেশে’ পরিণত হচ্ছে। ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম নেয়া হচ্ছে। বিমানবন্দরে হবে ই-গেইট। ফলে বিমানের যাত্রীদের ইমিগ্রেশনের লাইনে দাঁড়াতে হবে না।

    বিশেষ অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিষয়ক সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিন বলেন, তথ্য ও যোগাযোগ বাংলাদেশের জন্য আজ স্বপ্ন নয়; এটি ব্র্যান্ড। জাতীয় জরুরী সেবা-৯৯৯ বাংলাদেশকে এক দাপ এগিয়ে দিয়েছে। দেশের গ্রামাঞ্চলেও ওয়াইফাই ব্যবহারের দিন আসছে, এতে করে মানুষকে আর এমবি কিনে নেট ব্যবহার করতে হবে।

    সভাপতির বক্তব্যে আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক বলেন, ২০১৬ সালের ১ অক্টোবর থেকে ২০১৭ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ পরীক্ষামূলকভাবে সেবাটি চালু করে। এর ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, সেবা প্রত্যাশীদের মধ্যে ৬৪.৮০ শতাংশ পুলিশি সেবা, ৩১.১০ শতাংশ ফায়ার সার্ভিস এবং ৪.১০ শতাংশ অ্যাম্বুলেন্স সেবার জন্য ফোন করেছিলেন। তাই প্রথমে এ তিনটিকে নিয়েই সার্ভিসটি চালু করা হয়েছে। সার্ভিসের আওতায় সাড়ে চার হাজার অ্যাম্বুলেন্স রয়েছে। বর্তমানে এ কল সেন্টার একসঙ্গে ১২০টি কল ধরতে পারবে। ভবিষ্যতে এ সংখ্যা ৩০০-তে উন্নীত করা হবে।

    এছাড়া এখন শুধুমাত্র মোবাইল ও ল্যান্ডফোন থেকে ফোন দিয়ে এ সার্ভিস পাওয়া যাচ্ছে। আগামীতে সোশ্যাল মিডিয়া ও ইন্টারনেট থেকেও জরুরি সেবা পাওয়া যাবে বলে জানান তিনি। ৯৯৯-তে কল করে কি ধরণের সেবা পাওয়া যাবে বা কখন কল করবেন: কেউ যখন কোনো অপরাধ ঘটতে দেখবেন, প্রাণনাশের আশঙ্কা দেখা দিলে, কোনো হতাহতের ঘটনা চোখে পড়লে, কেউ কোনো দুর্ঘটনায় পড়লে, কোথাও অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটলে, কারো জরুরিভাবে অ্যাম্বুলেন্সের প্রয়োজন হলে। পুলিশ বিভাগ বলছে, তাদের দক্ষ ও প্রশিক্ষিত সদস্যরা ২৪ ঘন্টা এই সেবা দিতে প্রস্তুত থাকবেন।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে daynightbd.com