• শিরোনাম

    আর কোনো ঐশী চাই না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ১৯ জানুয়ারি ২০১৮

    আর কোনো ঐশী চাই না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

    মাদক বর্তমান সমাজের একটি ব্যাধি হয়ে দাঁড়িয়েছে। দেশের ৭০ লাখ মাদকাশক্তকে সেবা দিয়ে মূল ধারায় আনা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। মাদকের দাবানলে আর কোনো সন্তান ঐশির মতো নিজের বাবা-মায়ের খুনি তৈরি হোক সেটা আর চাইনা বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন। গতকাল দুপুরে রাজধানীর তেজগাঁও শিল্পাঞ্চলে কেন্দ্রীয় মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্র ৫০ শয্যা থেকে ১০০ শয্যায় উন্নীতকরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

    স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মাদক নির্মূলে আমাদের ল্যাব, জনবল ও প্রশিক্ষন দরকার। বলতে দ্বিধা নেই, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর (ডিএনসি) আগে ছিল ঠুঁটো জগন্নাথ। তিন জেলার দায়িত্বে ছিলেন মাত্র একজন কর্মকর্তা। বর্তমানে জনবল বৃদ্ধিসহ ডিএনসিকে স্বয়ংসম্পন্ন করতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে কাজ চলছে। মাদক সামাজিক সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর ভয়াল থাবা থেকে দেশকে বাঁচাতে হবে।

    ২০২১ সালে মধ্য আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালে উন্নত দেশে পরিণত করতে যুব সমাজের বিকল্প নেই। মাদকের কারণে যুব সমাজ পথ হারালে কাঙ্খিত লক্ষে পৌছানো যাবে না। মাদকের চেহারা ও কেমিক্যাল ক্রমেই পাল্টাচ্ছে। আগে ফেন্সিডিল ছিল, পরে হেরোইন এলো, এরপর এসেছে ইয়াবা। মাদকের আগ্রাসন রোধে স্কুল-কলেজসহ সব জায়গায় মাদক বিরোধী কথা বলে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

    মাদক সমস্য শুধু দেশের নয় এটা বিশ্বেরও সমস্যা। ভারত সীমান্তে ফেন্সিডিল কারখানা রয়েছে। সেটা বন্ধ করতে আমরা অনুরোধ করেছি। বর্তমানে ফেন্সিডিল কমে এসেছে। এখন ইয়াবা মহামারি আকার ধারণ করেছে। আমরা মায়ানমার সরকারকে অনুরোধ করেছে ইয়াবা কারখানা বন্ধ করতে। তারা বলেছে, ইয়াবা তাদের দেশেও মহামারি আকার ধারণ করেছে। আশা করছি তারা ইয়াবা কারখানা বন্ধের উদ্বেগ নিবেন।

    সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, নারায়ণগঞ্জে একটা দুঃখজনক ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষ কী কারণে হল, কারা করলো তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। অস্ত্রধারীদের ভিডিও ফুটেজ দেখে ধরার চেষ্টা করা হচ্ছে। ওই সংঘর্ষেও ঘটনা তদন্তে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন একটি কমিটি গঠন করেছে। যারা অস্ত্র দেখিয়েছে, যারা নিজের হাতে আইন তুলে নিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।

    তদন্তের স্বার্থে যা যা করার দরকার আমরা করছি। নারায়নগঞ্জের জনপ্রতিনিধির সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে আলোচনা করেছি। তাদের বলেছি এ ধরনের কর্মকান্ড বন্ধ করুন। প্রধানমন্ত্রী এগুলো পছন্দ করছেন না। মঙ্গলবার নারায়ণগঞ্জের চাষাঢ়ায় ফুটপাত হকারমুক্ত করা নিয়ে মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী এবং শামীম ওসমান সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে আইভী, ১০ সাংবাদিকসহ অর্ধশত ব্যক্তি আহত হন।

    অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি টিপু মুনশি বলেন, জঙ্গি ও মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থান সুদৃঢ়। মাদকাসক্ত হওয়ার আগে তা বন্ধ এবং হয়ে পড়লে তার চিকিৎসা নিশ্চিত করতে হবে। নইলে ২০২১ এবং ২০৪১ সালের ভিশন বৃথা হয়ে যাবে।

    স্বরাষ্ট মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব ফরিদ উদ্দিন আহম্মদ চৌধুরী বলেন, মাদকের ভয়াবহতা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২০০৮ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত সরকারী-বেসরকারি উদ্যোগে চিকিৎসা নিয়েছেন ৬০ হাজার ২৩২ জন। দেশে ৭০ লাখ মাদকসক্ত রয়েছে। এ হিসেবে চিকিৎসা সেবা পেয়েছে এক শতাংশেরও কম। সরকারি হাসপাতালে একটি ওয়ার্ড মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্র করার জন্য আবেদন করা হয়েছে। সেটা হলে অনেক মাদকাসক্ত রোগীকে চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব হবে।

    মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) মো. জামাল উদ্দীন আহমেদ বলেন, কেন্দ্রীয় মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে এখন থেকে দ্বিগুন সেবা দেওয়া যাবে। দেশব্যপি সরকারী ৪টি এবং বেসরকারী ১৯৭টি মাদক নিরাময় কেন্দ্র রয়েছে। যা অপর্যাপ্ত বা অপ্রতুল নয় বরং কিঞ্চিত। ২৭টি জেলায় কোনো মাদক নিরাময় কেন্দ্রই নেই। দেশব্যাপি সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে পর্যাপ্ত মাদক নিরাময় কেন্দ্র গড়ে তোলা উচিত।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে daynightbd.com