• শিরোনাম

    জাল টাকা ও রুপি তৈরির গুরুসহ গ্রেফতার চার

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ২৫ জানুয়ারি ২০১৮

    জাল টাকা ও রুপি তৈরির গুরুসহ গ্রেফতার চার

    রাজধানীতে পৃথক অভিযানে বাংলাদেশি জাল টাকা ও ভারতীয় জাল মুদ্রা তৈরি চক্রের চার সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তারা হলেন- দরুদুজ্জামান বিশ্বাস ওরফে জামান, তরিকুল ইসলাম, মজিবুর রহমান ও জয়নুল আবেদিন। এসময় তাদের কাছ থেকে ২০ লাখ জাল টাকা এবং ১২ লাখ ২৮ হাজার জাল রুপি পাওয়া যায়। পুলিশ বলছে, গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে দরুদুজ্জামান ৬টি মামলার আসামি এবং তিনি পুলিশের কাছে মোস্ট ওয়ানটেড ছিলেন। দরুদুজ্জামান বাংলাদেশে জাল রুপি তৈরির গুরু হিসেবে পরিচিত।

    বুধবার দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলন অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) দেবদাস ভট্টাচার্য জানান, বার বার গ্রেফতার হওয়ার পরও জামিনে বের হয়ে আবারও জাল রুপি তৈরি করে তা বাজারে ছড়িয়ে দিয়ে প্রতারণা করছে একটি চক্র। এ চক্রটির মূলহোতা দরুদুজ্জামান। তিনি ১৯৮৮ সাল থেকে জাল রুপি ও টাকা তৈরি করে আসছেন। তিনি বাংলাদেশে জাল রুপি তৈরির গুরু হিসেবে পরিচিত। ১৫ হাজার টাকার বিনিময়ে এক লাখ ভারতীয় জাল রুপির বান্ডিল বিক্রি করতো দরুদুজ্জামান।

    সোমবার রাতে রাজধানীর ফার্মগেট থেকে দরুদুজ্জামানকে দুই লাখ জাল রুপিসহ গ্রেফতার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) উত্তর বিভাগ। পরে তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে রাজশাহীর শাহ মখদূম থেকে ১০ লাখ ২৮ হাজার জাল রুপিসহ তরিকুলকে গ্রেফতার করা হয়। এছাড়া তাদের কাছ থেকে জাল রুপি তৈরির কাজে ব্যবহৃত ল্যাপটপ, প্রিন্টার ও লেমিনেটিং মেশিন, হ্যালোজেন লাইট, স্ক্যানিং করার প্রিন্টার ফ্রেম, সাদা কাগজ, বিভিন্ন ধরনের কার্টিজ ও মোবাইল সেট উদ্ধার করা হয়।

    এদিকে, মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর মগবাজার ও গাজীপুর থেকে জাল টাকা তৈরি চক্রের সদস্য মজিবুর ও জয়নুলকে গ্রেফতার করে ডিবির সিরিয়াস ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন বিভাগ। এ সময় তাদের কাছ থেকে ২০ লাখ জাল টাকা, জাল টাকা তৈরিতে ব্যবহৃত ল্যাপটপ, প্রিন্টার মেশিন, কি বোর্ড, মাউস, এন্টি কাটার, স্কেল, সাদা কাগজ, কাঠের ডাইস উদ্ধার করা হয়।

    এদের রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে জাল টাকা তৈরির কারখানা রয়েছে। সেখান থেকে জাল টাকা বানিয়ে তারা সাধারণ মানুষের কাছে ছড়িয়ে দিত। তারা ৮-১২ হাজার টাকার বিনিময়ে এক লাখ বাংলাদেশি জাল টাকার বান্ডিল বিক্রি করতো। যারা গ্রেফতারের পর আইনী প্রক্রিয়ায় জেল থেকে ছাড়া পাচ্ছেন তাদের নজরদারিতে রাখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তা দেবদাস ভট্টাচার্য।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে daynightbd.com