• শিরোনাম

    মন্ত্রীর অপেক্ষায় তরমুজ বিক্রিতে দেরি, ক্ষুব্ধ ক্রেতারা

    নিজস্ব প্রতিবেদক | বৃহস্পতিবার, ২৮ মার্চ ২০২৪

    মন্ত্রীর অপেক্ষায় তরমুজ বিক্রিতে দেরি, ক্ষুব্ধ ক্রেতারা

    রাজধানীর খামারবাড়ি মোড়ে পিকআপ ট্রাক বোঝাই তরমুজ। গাড়ির চারপাশে ক্রেতারা অপেক্ষা করছেন তরমুজ কেনার জন্য। অনেকে ধরে দেখছেন, ওজন করে আবার রেখে দিচ্ছেন। বিক্রিতে দেরি দেখে চলেও যাচ্ছেন অনেকেই। এরপরও রোজা রেখে রোদের মধ্যে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছিলেন অনেক ক্রেতা। মন্ত্রী আসবেন, উদ্বোধন করবেন, তারপর বিক্রি শুরু হবে, এই অপেক্ষা যেন শেষই হচ্ছিল না। অবশেষে উদ্বোধনের আগেই দুপুর আনুমানিক ১২টা ২০ মিনিটের দিকে তরমুজ বিক্রি শুরু হয়। পরে দুপুর ১টায় কৃষিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. মো. আব্দুস শহীদ ‘কৃষকের পণ্য, কৃষকের দামে’ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন।

    ‘কৃষকের পণ্য, কৃষকের দামে’ এই স্লোগান নিয়ে রাজধানীর পাঁচ স্থানে ন্যায্যমূল্যে তরমুজ বিক্রির ঘোষণা দেয় বাংলাদেশ এগ্রি ফার্মার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাফা)। বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) থেকে এই কার্যক্রম শুরুর তথ্য জানানো হয়। ঘোষণা অনুযায়ী খামারবাড়ি মোড়ে তরমুজের পিকআপও আসে। কিন্তু সকাল থেকে অপেক্ষা করেও কিনতে পারছিলেন না ক্রেতারা। সকাল ১০টা থেকে সেখানে অবস্থান করে দেখা যায়, কেনার জন্য দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করে উত্তেজিত হয়ে ওঠেন তরমুজ কিনতে আসা লোকজন। অবশেষে মন্ত্রীর উদ্বোধনের আগেই দুপুর ১২টার পরে বিক্রি শুরু করেন বিক্রেতারা।

    দুপুর ১টায় কার্যক্রম উদ্বোধন করে কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুস শহীদ বলেন, ফুলে ফলে ভরা আমাদের বাংলাদেশ। আমাদের প্রিয় ফল হচ্ছে তরমুজ। রমজান মাসে ইফতারের সময় তরমুজ খাওয়াটা খুবই তৃপ্তির। এই তরমুজ চাষে যারা কাজ করেন সেই কৃষকের উন্নতির জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

    তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের দায়িত্ব দিয়েছেন দেশের মানুষ যাতে ফল উৎপাদন করে খেতে পারেন সেই ব্যবস্থা করার জন্য। এই কথা মাথায় রেখেই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

    দুপুর ১টায় কার্যক্রম উদ্বোধন করে কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুস শহীদ বলেন, ফুলে ফলে ভরা আমাদের বাংলাদেশ। আমাদের প্রিয় ফল হচ্ছে তরমুজ। রমজান মাসে ইফতারের সময় তরমুজ খাওয়াটা খুবই তৃপ্তির। এই তরমুজ চাষে যারা কাজ করেন সেই কৃষকের উন্নতির জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

    তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের দায়িত্ব দিয়েছেন দেশের মানুষ যাতে ফল উৎপাদন করে খেতে পারেন সেই ব্যবস্থা করার জন্য। এই কথা মাথায় রেখেই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

    কৃষিমন্ত্রী বলেন, বাফা আমার সঙ্গে যখন পরামর্শ করতো তখন আমি তাদের বললাম, সাধারণ মানুষ তরমুজ খেতে চায়, কিন্তু কিনতে পারছে না। আপনারা সংগ্রহ শুরু করুন। এরপর তারা বরিশালসহ সারা দেশের অন্যান্য জায়গায় গিয়েছে। এটি সিন্ডিকেট ভাঙার একটি বড় উদ্যোগ।

    এ সময় তিনি সিন্ডিকেটের তথ্য গণমাধ্যমে তুলে ধরে সেটি ভাঙতে সহযোগিতা করার জন্য সাংবাদিকদের প্রতি আহ্বান জানান।

    সরকার তো জনগণের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে। ন্যায্যমূল্যে পণ্য বিক্রির কার্যক্রম নেওয়া হয়। কিন্তু সব উদ্যোগ সারা দেশে একসঙ্গে নেওয়ার মতো জনবল ও বিশেষজ্ঞ নেই৷ তারপরও আমরা জনগণের মঙ্গলের জন্য যতটুকু পারছি কাজ করে যাচ্ছি, যোগ করেন মন্ত্রী।

    সকাল ৯টা থকে থেকে অপেক্ষা করে দুপুর সাড়ে ১২টায় তরমুজ কিনতে পেরেছেন বাবুল মিয়া। তিনি বলেন, তিন ঘণ্টা দাঁড়ানোর পর কিনতে পেরেছি। আমাকে ৯ কেজির তরমুজ দিয়ে ১১ কেজির দাম রেখেছিল। পরে আমি গিয়ে মাপলে দেখি ওজন অনুযায়ী টাকা বেশি রেখেছে। তাদের জানানোর পর টাকা ফেরত দিয়েছে।

    সকাল ১১টা থেকে লাইনে দাঁড়িয়ে সাড়ে ১২টায় তরমুজ কিনতে পেরেছেন নাহিদ। তিনি বলেন, আমরা তো লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলাম। বলেছেন মন্ত্রী উদ্বোধনের পর বিক্রি শুরু করবে। কিন্তু মন্ত্রীই আসলেন না। শুধু শুধু মানুষকে রোদের মধ্যে দাঁড় করিয়ে কষ্ট দিলো। এই বিক্রিটা রোজার শুরু থেকে করা উচিত ছিল। তাহলে আরও ভালো হতো। তবে কাজটা ভালো। এখন রিকশাচালক থেকে শুরু করে সবাই খেতে পারবে।

    তরমুজ কিনতে এসেছিলেন নাসরিন বেগম বলেন, আধা ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে একটা তরমুজ কিনতে পেরেছি। সময় লাগলেও কম দামে যে কিনতে পেরেছি এতেই খুশি। কারণ বাজারে যে দাম ছিল সেটা দিয়ে আমাদের কেনার সামর্থ্য ছিল না।

    অন্যদিকে সকাল থেকে রোদের মধ্যে দাঁড়িয়ে থেকে ক্লান্ত হয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে ক্রেতারা করেছেন নানা অভিযোগ। কেউ কেউ চলে গিয়েছেন না কিনেই। নাসিমা বেগম বলেন, গতকাল টিভিতে দেখে আজ সকাল ১০টায় তরমুজ কিনতে এসেছি। কিন্তু এখন ১২টার মতো বাজলো, তরমুজ কিনতে পারিনি। বিক্রেতারা বলছেন আধা ঘণ্টা পরই বিক্রি শুরু হবে—এমন করতে করতে ১২টাই বেজে গেলো, কিন্তু বিক্রি আর শুরু করছে না।

    আরেক ক্রেতা নুরুল আমিন বলেন, আমি সকাল সাড়ে ৯টায় এসেছি প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের গাড়ি থেকে মাংস কিনতে। লাইন ধরে সেটাও কেনা শেষ হয়ে গেছে এক ঘণ্টা হয়েছে। তারপর থেকে তরমুজের জন্য দাঁড়িয়ে আছি। কিন্তু এখনও কিনতে পারিনি। এখন তো মনে হচ্ছে কম দামে তরমুজ কিনতে এসে আমার মাংস নষ্ট হয়ে যাবে। ১২টা বেজে গেছে, আর বেশিক্ষণ অপেক্ষা করা যাবে না। এখন তরমুজ না নিয়ে চলে যাচ্ছি।

    নাম না প্রকাশ করতে চেয়ে এক ক্রেতা বলেন, তরমুজ বিক্রি করতে কি মন্ত্রীকে লাগে?

    আমাদের আগেই বলতো যে বিকাল থেকে বিক্রি করা হবে, তাহলে তো আমরা সকালে রোদের মধ্যে এসে লাইনে দাঁড়াতাম না। গাড়ি এনে দাঁড় করিয়ে রেখেছে, কিন্তু তরমুজ বিক্রি করবে না। এমনভাবেই বলছিলেন তরমুজ কিনতে আসা আরেক ক্রেতা।

    এসময় বিক্রি শুরুর সময় নিয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ এগ্রি ফার্মার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বাফা) ডিরেক্টর মাহফুজ বলেন, আমাদের নির্দিষ্ট কোনও সময় দেওয়া নেই। আমরা সময় নিয়ে কোনও ঘোষণা দেইনি। এখানে গাড়ি এনে রাখাতে উৎসুক মানুষ ভিড় করছে। তাদের বারবার বলা হয়েছে বিক্রি করতে সময় লাগবে। তারপরও তারা দাঁড়িয়ে আছে।

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ১২:০৯ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ২৮ মার্চ ২০২৪

    daynightbd.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০