• শিরোনাম

    বাজেট ২০২৩-২৪

    ভর্তুকির ৮৪ হাজার কোটি টাকা কোথায় যাবে

    ডেনাইট ডেস্ক | রবিবার, ০৪ জুন ২০২৩

    ভর্তুকির ৮৪ হাজার কোটি টাকা কোথায় যাবে

    আগামী ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেটে ভর্তুকি ও প্রণোদনায় বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৮৪ হাজার ৫৪২ কোটি টাকা, যা মোট বাজেটের ১১ শতাংশের বেশি। আগামী অর্থবছরের জন্য অর্থমন্ত্রী বৃহস্পতিবার ৭ লাখ ৬১ হাজার ৭৮৫ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব পেশ করেছেন সংসদে। মহামারি-পরবর্তী যুদ্ধাবস্থায় আন্তর্জাতিক বাজারে কৃষি উপকরণের মূল্য বৃদ্ধিসহ গত অর্থবছর নানা ধরনের প্রতিকূল অবস্থা মোকাবিলা করেছে দেশের কৃষি খাত। এ অবস্থা বজায় রয়েছে এখনো। কৃষি উৎপাদনের ধারা অব্যাহত রাখতে চলতি অর্থবছরের চেয়ে ১ হাজার ৬৭৬ কোটি টাকা বাজেট বরাদ্দ বেড়েছে আগামী বছরে। কৃষি, খাদ্য, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতে মোট বরাদ্দ প্রস্তাব করা হয়েছে ৪৩ হাজার ৭০৩ কোটি টাকা।

    চলতি অর্থবছর এসব খাতে বরাদ্দ রয়েছে ৪২ হাজার ১১০ কোটি টাকা। উচ্চমূল্যের সার ও অন্যান্য উপকরণ কৃষকের হাতে কম দামে তুলে দিতে কৃষি খাতে ভর্তুকি বরাদ্দ করা হয়েছে ১৭ হাজার ৫৩৩ কোটি টাকা, যা চলতি অর্থবছরের চেয়ে ১ হাজার ৬ কোটি টাকা বেশি। ২০২২-২৩ অর্থবছর বরাদ্দ রয়েছে ১৬ হাজার ৫২৭ কোটি টাকা। যদিও সংশোধিত বাজেটে কৃষি খাতে বরাদ্দ বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ২৭ হাজার কোটি টাকায়। সমাজের পিছিয়ে পড়া ও সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর কাছে সামগ্রিক উন্নয়নের সুফল পৌঁছাতে সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী ও কল্যাণে বিভিন্ন প্রকল্পে উপকারভোগীর সংখ্যা বাড়ানোর পাশাপাশি তাদের দেওয়া ভাতার পরিমাণও বাড়ানো হচ্ছে।

    ২০২৩-২৪ অর্থবছরে বয়স্ক ভাতা কর্মসূচিতে উপকারভোগীর সংখ্যা ১ লাখ বাড়িয়ে ৫৮ লাখ ১ হাজার করা হয়েছে। একই সময়ে বাড়ানো হয়েছে ভাতার পরিমাণ। চলতি বছর এ খাতের ৫৭ লাখ ১ হাজার উপকারভোগী ৫০০ টাকা করে ভাতা পেলেও আগামী অর্থবছর থেকে পাবেন ৬০০ টাকা। বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলা ভাতার উপকারভোগীর সংখ্যা ১ লাখ বাড়িয়ে ২৫ লাখ ৭৫ হাজার করা হয়েছে। ভাতার পরিমাণ ৫০ টাকা বাড়িয়ে ৫৫০ টাকা করা হয়েছে। চলতি অর্থবছর এ খাতের ২৪ লাখ ৭৫ হাজার উপকারভোগী ৫০০ টাকা ভাতা পাচ্ছেন। প্রতিবন্ধী ভাতার উপকারভোগীর সংখ্যা ৫ লাখ ৩৫ হাজার বাড়িয়ে ২৯ লাখে উন্নীত করা হয়েছে। তবে ভাতার পরিমাণ ৮৫০ টাকাই থাকছে। চলতি অর্থবছর প্রতিবন্ধী ভাতার উপকারভোগীর সংখ্যা রয়েছে ২৩ লাখ ৬৫ হাজার।

    আগামী অর্থবছর প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের মাসিক উপবৃত্তির পরিমাণ প্রাথমিক স্তরে ৯০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। বর্তমানে এ খাতে ভাতা দেওয়া হচ্ছে ৭৫০ টাকা। মাধ্যমিকে ১০০ টাকা বাড়িয়ে ৯০০ টাকা এবং উচ্চমাধ্যমিকে ৫০ টাকা বাড়িয়ে ৯৫০ টাকা করা হয়েছে। অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচির উপকারভোগীর সংখ্যা ১২ হাজার বাড়িয়ে ৮২ হাজার ৫০৩ জন করা হয়েছে। চলতি বছর এ খাতে উপকারভোগীর সংখ্যা রয়েছে ৬৯ হাজার ৫৭৩ জন। বিশেষ ভাতাভোগীর সংখ্যা বাড়ছে ৯ হাজার ৫০ জন। আগামী অর্থবছর এ কর্মসূচির ভাতা পাবেন ৫৪ হাজার ৩০০ জন। চলতি বছরে রয়েছে ৪৫ হাজার ২৫০ জন। মা ও শিশু সহায়তা কর্মসূচিতে উপকারভোগীর সংখ্যা ৫০ হাজার বাড়িয়ে ১৩ লাখ ৪ হাজার করা হয়েছে।

    চলতি বছর উপকারভোগীর সংখ্যা রয়েছে ১২ লাখ ৫৪ হাজার। এমন সব প্রস্তাবে সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী খাতে বরাদ্দ প্রস্তাব করা হয়েছে ৪০ হাজার ৮৫২ কোটি টাকা। বাজেটজুড়ে ভর্তুকি ও প্রণোদনার যে হিসাব দেখানো হয়েছে তাতে সামাজিক সুরক্ষা খাতে ভর্তুকি ও প্রণোদনায় বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৫ হাজার ১৫ কোটি টাকা। আবার জনপ্রশাসন খাতে ভর্তুকি ও প্রণোদনার প্রস্তাব করা হয়েছে ৬০ হাজার ৮৭ কোটি টাকা। প্রতিরক্ষা খাতে ৬৫০ কোটি টাকা এবং জনশৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা খাতে ১ হাজার ২৫৭ কোটি টাকা।

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ৪:১০ পূর্বাহ্ণ | রবিবার, ০৪ জুন ২০২৩

    daynightbd.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০