• শিরোনাম

    বয়স ৩০ না হলে ব্যাংকের পরিচালক নয়

    নিজস্ব প্রতিবেদক | রবিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | পড়া হয়েছে 12 বার

    বয়স ৩০ না হলে ব্যাংকের পরিচালক নয়

    সংগৃহীত ছবি

    ব্যাংকিং খাতে সুশাসন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ব্যাংকের পরিচালক নিয়োগের নিয়ম কঠোর করতে নির্দেশনা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বিশেষ করে ব্যাংক কোম্পানি (সংশোধনী) আইন-২০২৩-এর সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে নতুন করে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে।

    নতুন নিয়মে একজন পরিচালকের বয়স ন্যূনতম ৩০ বছর হতে হবে। আগে এর কোনো ধরাবাঁধা সীমা ছিল না। পাশাপাশি পরিচালকদের অন্তত ১০ বছরের ব্যবস্থাপনা ও ব্যবসায়িক অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। অথবা অন্য কোনো পেশাগত অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। কিন্তু ১৮ বছর বয়সের আগের কোনো কাজের অভিজ্ঞতা বিবেচনায় নেওয়া হবে না। ব্যাংক বা কোম্পানির নিজের বা স্বার্থসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান খেলাপি হবে না।

    রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) বাংলাদেশ ব্যাংক এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

    প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ব্যাংক-কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ গঠন এবং পরিচালকদের দায়িত্ব ও কর্তব্যসংক্রান্ত নির্দেশনা বাস্তবায়নের হালনাগাদ তথ্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট বিভাগে জানাতে হবে।

    ব্যাংক খাতের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কোনো কোনো ব্যাংকে ২২ বছর বয়সেও পরিচালক পদে নিয়োগ পেয়েছেন। দেশের ব্যাংক খাতের একটি সর্ববৃহৎ বেসরকারি ব্যাংকের একজন পরিচালক ২৮ বছর বয়সে চেয়ারম্যান হন। সাউথইস্ট ব্যাংকের একজন পরিচালক নিয়োগের জন্য ১৮ বছর বয়সী এক ব্যক্তির নাম সুপারিশ করা হলে তা বাতিল করে দিয়েছিল বাংলাদেশ ব্যাংক।

    কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ব্যাংকের পরিচালকদের ফৌজদারি অপরাধে দণ্ডিত হতে পারবেন না। কোনো জাল-জালিয়াতি, আর্থিক অপরাধ বা অন্য অবৈধ কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ছিলেন না বা জড়িত নন, এমন নিশ্চয়তা থাকতে হবে পরিচালকদের। কোনো পরিচালক দেওয়ানি বা ফৌজদারি মামলায় আদালতের রায়ে বিরূপ পর্যবেক্ষণ বা মন্তব্য করতে পারবেন না।

    আর্থিক খাতসংশ্লিষ্ট কোনো নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষের বিধিমালা, প্রবিধান, নীতিমালা বা নিয়মাচার লঙ্ঘনের কারণে দণ্ডিত হওয়া যাবে না। তিনি কোনো সময়ে আদালত কর্তৃক দেউলিয়া ঘোষিত হবেন না। ব্যাংক ও কোম্পানির পরিচালক হতে আগ্রহী ব্যক্তির সংশ্লিষ্ট কোম্পানির নিবন্ধন বাতিল হওয়া যাবে না। পরিচালক সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান অবসায়িত হওয়া যাবে না।

    নীতিমালায় বলা হয়েছে, ব্যাংক-কোম্পানির পরিচালক হতে গেলে অন্য কোনো ব্যাংক-কোম্পানি, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, বিমা কোম্পানি বা তেমন কোম্পানিগুলোর কোনো সাবসিডিয়ারি কোম্পানির পরিচালক বা উপদেষ্টা বা পরামর্শক বা অন্য কোনোভাবে লাভজনক পদে থাকা যাবে না। এ ছাড়া তিনি একই ব্যাংক-কোম্পানির বহিঃহিসাব নিরীক্ষক, আইন উপদেষ্টা, উপদেষ্টা, পরামর্শক বা অন্য কোনো লাভজনক পদে থাকতে পারবেন না।

    ব্যাংক-কোম্পানিতে কোনো পদে চাকরিরত থাকলে চাকরি থেকে অবসরের পাঁচ বছর অতিক্রম না হলে তিনি পরিচালক হতে পারবেন না। আর্থিক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ইচ্ছাকৃত খেলাপি ঋণগ্রহীতা হিসেবে তালিকাভুক্ত হলে সেই তালিকা থেকে অব্যাহতি পাওয়ার পর পাঁচ বছর অতিক্রম না হলে পরিচালক হতে পারবেন না।

    নির্দেশনা অনুযায়ী, নিরীক্ষা কমিটির সদস্যরা ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ কর্তৃক নিয়োগ পেতে হবে। সর্বোচ্চ সদস্য হবে পাঁচজন। তাঁদের মধ্যে দুজন হবেন স্বতন্ত্র পরিচালক। স্বতন্ত্র পরিচালকদের মধ্যে একজন অডিট কমিটির চেয়ারম্যান বা সভাপতি হিসেবে নিয়োগ পাবেন। এই সভাপতির মেয়াদ হবে তিন বছর। কোনো স্বতন্ত্র পরিচালক দুই মেয়াদের বেশি চেয়ারম্যান হতে পারবেন না। ব্যাংকের কোম্পানি সচিব অডিট কমিটির সচিবের দায়িত্ব পালন করবেন। আর্থিক বিবরণী চূড়ান্ত করার আগে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শন দল, বহির্নিরীক্ষণ এবং ব্যবস্থাপনা কমিটির সঙ্গে অডিট কমিটি মতবিনিময় করে পরামর্শ নেবে।

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ৮:৩০ অপরাহ্ণ | রবিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

    daynightbd.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    এলপি গ্যাসের দাম বাড়ল

    ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

    আর্কাইভ

    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১